Romantic Valobasar Golpo | রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প | Love Express

গল্পটি আমার আর রিদয়ের

Valobasar Golpo

Valobasar Golpo 


সবার আগে বলে রাখি, বর্তমানে আমার হাসবেন্ড একজন মাজিস্ট্রেট আর আমি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা । আমি এখন আমি বলব আমার আর রিদয়ের বিয়ের আগের গল্প।

আমার এই গল্প টিতে প্রধান  "রোমান্টিক কাহিনি"  ছিল  আমাদের প্রথম সাক্ষাৎ !!


Romantic Valobasar Golpo 

আজ থেকে প্রায় এক থেকে দের বছর আগে, আমি স্কুটি চালিয়ে স্কুল থেকে বাড়িতে যেতে ছিলাম। হঠাৎ একজন লোক মোবাইলে কথা বলতে বলতে আমার স্কুটির সামনে এসে পরে। আমি ব্রেক কসতেই আমার স্কুটির সাথে ধাক্কা লেগে লোক টির হাত অনেক টা  কেটে ছুলে যায়। আমি স্কুটি থেকে নেমে লোক টি কে জিজ্ঞেস করি আপনি ঠিক আছেন তো ..? [ তার আগে বলে রাখি যকে আমি লোক লোক বলে যাচ্ছি, সে আর কেউ নয় আমার হাসবেন্ড রিদয়।]


Romantic Valobasar Golpo 


আমিঃ আপনি ঠিক আছেন .? 

রিদয়ঃ আমি তো ঠিক আছি,তার আগে তোমার লাইসেন্স দেখায়।

আমিঃ লাইসেন্স মানে,? আপনার হাত কেটে রক্ত ঝরছে সেটা তো আগে ট্রিটমেন্ট করতে হবে।

রিদয়ঃ তার আগে তোমার লাইসেন্স দেখাও আমায়। নয়তো আমি পুলিশ কে কল করব।

আমিঃ আ/রে আপনি-ই তো হুট করে আমার স্কুটির সামনে এসেছেন, আমি ব্রেক কসার সুযোগ টাই পাইনি। আর আপনিই এখন আমায় দোসা রুপ করচ্ছেন।

রিদয়ঃ এতসব কথা শুনার ইচ্ছা নেই আমার। আপনার ডিটেইলস দেন তাহলে, নয়তো পুলিশ কে কল করব।

আমিঃ আপনি কি আমায় পুলিশের ভয় দেখাচ্ছেন .? 

রিদয়ঃ একদম না!! তোমার ডিটেইলস দিবে না কল দিব।

আমিঃ যাকে খুশি তাকে কল দেয় দেখি কে কি করে। (কিছু খুনের মধ্যে পুলিশের গাড়ির শব্দ শুনতে পাই।) 

রিদয়ঃ ওই দেখ পুলিশ আসছে, এখনো ভালো ভালোই করে বলে দেও আমি যা জিজ্ঞেস করছি। তোমারলাইসেন্স আছে। 



Romantic Valobasar Golpo 




আমিঃ আসলে গ্রামের রাস্তায় লাইসেন্সর তেমন কোনো প্রয়োজন হয় না, তাই লাইসেন্স করা হয় নি।

রিদয়ঃ বিবাহিত না অবিবাহিত .? 

আমিঃ অবিবাহিত !! 

রিদয়ঃ বয়ফ্রেন্ড.?? 

আমিঃ দেখ এই সব আমার  প্রার্সোনাল বিষয়।তুমি এই সব প্রশ্ন করতে পার না।

রিদয়ঃ কি কর /আর  পুলিশ প্রায় চলে এসেছে,।

আমিঃ আমার কোনো বয়ফ্রেন্ড নেই,আমি একজন টিচার। এবার হয়েছে। 

রিদয়ঃ হয়েছে, এবার তুমি যেতে পার প্রয়োজন হলে আবার ডাকবো। 

আমিঃ তার আগে বলেন আপনি কে.?? এত খুন ধরে আমার মাথা খেতে ছিলেন। 



আরও পড়ুন ; হার না মানার গল্প


ঠিক তখনই দেখি দুই টা পুলিশের গাড়ি এসে তার কাছে দাঁড়ায়।আর রিদয় কে স্যার স্যার বলে ডাকছে। তখনই আমি বুঝে গেছি রিদয় হয়তো কোনো সরকারি অফিসার। আর এমনকি তার পোশাক দেখে-ই বোঝা জেতে ছিল। এরপর রিদয় গাড়িতে উঠে চলে যায়। এরপর দেখতে দেখতে প্রায় এক মাস মতো কেটে গেল। 



  Valobasar Golpo 



একদিন হঠাৎ আবারও রিদয় কে আমার স্কুলে দেখতে পাই।সেইদিন সে আমাদের স্কুল পরিদর্শন করতে এসেছিল। আর সেই দিন-ই রিদয়ের সম্পর্কে জানতে পারি যে সে এক জন মাজিস্ট্রেট। আমি তখন ক্লাস নিতে ছিলাম। রিদয় আমার ক্লাস রুমে আসে,আর কিছু ছাত্র ছাত্রী দের প্রশ্ন করে চলে যায় । আর আমায় ডাকে,আমি একটি লজ্জাজনক ভাবে তার কাছে যায় আর তাকে বলিঃ কেমন আছেন স্যার, হাতের চোটের দগটা এখনো ভালো করেই বোঝা যাচ্ছে। রিদয়ঃ হ্যাঁ  এখন আমি ঠিক আছি.!! আচ্ছা  তোমার ফাইল টা আমি দেখেছি যে,তোমার জব টা পার্মানেন্ট না। আমিঃ হ্যাঁ, আসলে কিছু দিন আগে আমার বাবা  মা-রা যায়।আর তারপরে আমি এখানে জয়েন করি।আমি উপর পর্যায়ে দরখাস্ত করেছি। রিদয়ঃ আমি সেখান থেকেই আসছি।তোমার পরিবারে কে কে আছে.? আমিঃ  আমরা দুই বোন আমি ছোট, বড় বোনের বিয়ে হয়ে গিয়েছে। আর আমি বিবিএ এর তৃতীয় বর্ষে পড়াছি।

ঠিক আছে আমি নিজেই তোমার ফাইল টা দেখব।  আমিঃ ধন্যবাদ স্যার। এভাবেই কেটে গেল আরও কিছু দিন।


 Romantic Valobasar Golpo 




কিছু দিন পর.... 

আমার নামে একটি চিঠি এসেছিল, চিঠিতে লেখা ছিল আমার টিচারের চাকরি টি পার্মানেন্ট হয়ে গেছে। আর এর পেছনে ছিল রিদয়।রিদয় যদি আমায় সাহায্য না করত তাহলে হয়তো কাজ টি এত দ্রুত হতো না।এজন্যই আমার বাসায় মাজিস্ট্রেট সাহেব কে ডেকেছি।সেইদিন সন্ধ্যার দিকে আমার বাসায় আসে।আমি তাকে সালাম দিয়ে আমার বাসায় স্বাগতম জানায়। এরপর তার সাথে কথা বলার জন্য বাসার সাদে যায়। 



আরও পড়ুন ; ভালোবাসার কষ্টের গল্প


আমিঃ আপনাকে কি বলে ধন্যবাদ জানাব ভেবে পাচ্ছি না। আপনি আমায় সাহায্য না করলে কাজ টি এত দ্রুত হতো না। 

রিদয়ঃ ঠিক আছে,ঠিক আছে। যেমন তেমন ভাবেই ধন্যবাদ জানালেই হবে। 

আমিঃ তাই,আসলে এই চাকরি টা আমার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কারন বাবা মারা যাবার পরে, এই সংসার টা চালানোর জন্য আর আমার লেখা পড়া করার খরচ জোগানের জন্য চাকরি টা আমার খুবই প্রয়োজন  ছিল। 

রিদয়ঃ  আমি বুঝতে পেরেছিলাম তাই সাহায্য করেছি তোমায়।আচ্ছা তোমার বয়ফ্রেন্ড-টয়ফ্রেন্ড কি আছে নাকি। 

আমিঃ বয়ফ্রেন্ড/ই তো নেই। তবে অনেক জন আমায় প্রপোজ করেছিল আর আমারও কিছু ছেলেদের  পছন্দ করতাম। কিন্তু কখনো কাউকে ভালোবাসি নি।শুধু লাভ এট ফাস্ট সাইড করেছি। 



Romantic Valobasar Golpo 


রিদয়ঃ সবই বুঝলাম.!! আছা আমার ক্ষিদে পেয়েছে। 

আমিঃ আগে বলবেন তো নিচে চলেন।আমি নিজেই রান্না করেছি। 

এরপর খাওয়া দাওয়া শেষ করে রিদয় চলে যায় আমার বাসা থেকে। 

রিদয়ের সাথে প্রায় দুই থেকে আড়াই মাস আগে শেষ দেখা আর শেষ কথা হয়।এরপর আর কোনো কথা বা তার সাথে দেখা হয়নি।




এভাবেই আরও কয়েদিন কেটে গেল.


একদিন হঠাৎ দেখি আমার বাসায় কয়েক জন অচেনা লোক  এসেছে।আমি প্রথমে ভেবেছিলাম অন্য কেউ হবে। পরে আমি রিদয় কে দেখতে পাই। এরপর রিদয় আমার কাছে এসে বলে , তুমি আমায় বিয়ে করবে.?? আমি তো এই শুনে অবাক হয়ে গেছি, আর নিজের কান কেউ বিশ্বাস করতে পারছি না।আমি কোনো কিছু না ভেবেই মাথা নাড়িয়ে হ্যাঁ বলে দিই।


আরও পড়ুন ; অনুপ্রেরণার গল্প


আর এর কিছু দিন পরেই আমার আর রিদয়ের বিয়ে হয়।আর এভাবেই আমাদের দুজনের গল্প চলতে থাকে। 


Romantic Valobasar Golpo 


গল্পটি কেমন লাগলো তা কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন। আর ভালো লেগে থাকলে অবশ্য গল্পটি শেয়ার করবেন। 

এতক্ষণ গল্পটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। 





Post a Comment

⚠️ এমন কোনো মন্তব্য করবেন না যাতে, অন্য কোনো ব্যাক্তির সমস্যা হয়।

Previous Post Next Post
v